Friday, February 21, 2020

রোজা নিয়ে গবেষণা এরপর নোবেল জয়
অনেক নাস্তিক বলতে পারে যে ,রোজা রাখা মানে হচ্ছে নিজেকে কষ্ট দেওয়া একজন বিজ্ঞানী এ সম্পর্কে তথ্য দিয়ে নোবেল প্রাইজ পেয়েছেন । বিজ্ঞান কি বলে রোজা রাখা সম্পর্কে সেটাই ্এই লেখাটির মাধ্যমে জানার চেষ্টা করবো তার আগে বলে নেই আমরা মুসলমানরা রোজা রাখি একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্যই । আল্লাহর আদেশ মানার জন্য। বিজ্ঞানের পক্ষে বা বিপক্ষে থাকো ।
আল্লাহ তাআলার আদেশ মানার জন্যই আমরা মুসলমানরা রেখে থাকি । যে রোজা রাখা সম্পর্কে পবিত্র কুরআনে ১৫ বছর আগে বলা হয়েছে, আল্লাহ তা'আলা পবিত্র কুর'আনে বলেনঃ হে ঈমানদারগণ তোমাদের উপর রোজা ফরয করা হয়েছে যেরূপ ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তী লোকদের উপর যেন তোমরা পরহেযগারী অর্জন করতে পারো । সূরা বাকারা : আয়াত ১৮৩ । খুব বেশিদিন হয়নি সম্প্রতি মেডিকেল সাইন্স অটোফেজি সাথে পরিচিত হয়েছে ২০১৬ সালে চিকিৎসা শাস্ত্রে নোবেল পেয়েছেন জাপানের  ইয়শিনড়ি অহসুমি । প্রাণী কোষ কিভাবে নিজের উপাদানকে পূর্ণ প্রক্রিয়াজাত করে তা আবিস্কারের স্বীকৃতি হিসেবে তাকে এই পুরস্কার দেওয়া হয় ইয়োশিনোরি ওসুমি দেখিয়েছেন পূর্ন প্রক্রিয়াজাত করার মাধ্যমে কিভাবে সুস্থ থাকে সুইডেনের নোবেল কমিটি বলে ক্যান্সার থেকে শুরু করে পারকিন্সন্স এর মত জটিল রোগ কেন হয় তা বুঝতেই এই গবেষণা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে ৮০ লাখ সুইডিশ ক্রোনার পান অর্থাৎ ৮০ লাখ টাকা পান । এখন আসি বন্ধুরা অটোফেজি।  অটোফেজি শব্দটি গ্রিক শব্দ। অটো অর্থ নিজে নিজে এবং ফেজি অর্থ খাওয়া সুতরাং অটোফেজি মানে হচ্ছে নিজে নিজেকে খাওয়া । না মেডিকেল সাইন্স নিজের কোষ তো নিজে খেতে বলে না । শরীরের কোষগুলো যখন বাইরে থেকে কোনো খাবার না পেয়ে নিজেই যখন নিজের অসুস্থ কোষগুলোকে খেতে শুরু করে তখন মেডিকেল সাইন্সের ভাষায় তাকে অটোফেজি বলা হয় । আরেকটু সহজভাবে বোঝার চেষ্টা করি, আমাদের ঘরে যেমন ডাস্টবিন থাকে অথবা আমাদের কম্পিউটার যেমন রিসাইকেল বিন থাকে তেমনি আমাদের শরীরের প্রতিটি কোষের মাঝেও একটি করে ডাস্টবিন । আছে সারা বছর শরীরের কোষগুলো খুব ব্যস্ত থাকার কারণে ডাসবিন পরিষ্কার করার সময় পায়না । ফলে কোষগুলোতে অনেক আবর্জনা ও ময়লা জমে যায় । শরীরের কোষগুলো যদি নিয়মিত তাদের ডাসবিন পরিষ্কার করতে না পারে । তাহলে কোষগুলো একসময় নিষ্ক্রিয় হয়ে শরীরে বিভিন্ন প্রকারের রোগ উৎপন্ন করে । ক্যান্সার বা ডায়াবেটিসের মতো অনেক বড় বড় শুরু হয় এখান থেকেই । মানুষ যখন খালি পেটে থাকে তখন শরীরের কোষগুলো অনেকটাই বেকার হয়ে পড়ে কিন্তু তারা তো আর বসে থাকে না । তাই প্রতিটি কোষ দ্বারা ভিতরের আবর্জনা ও ময়লা পরিষ্কার করতে শুরু করে । কোষগুলোর আমাদের মত আবর্জনা ফেলার জায়গা নেই বলে তারা নিজেরাই আবর্জনা নিজেই খেয়ে ফেলে মেডিকেল সাইন্সে এই পদ্ধতিকে বলা হয় অটোফেজি । ওশিনরি ওসুমি কে যখন জিজ্ঞাসা করা হয় কি পরিমাণ সময় না খেয়ে থাকলে এই প্রক্রিয়াটি শুরু হয় তখন তিনি বলেন বছরে ২০ থেকে ২৫ দিন সময় । এই কথাটিই আল্লাহ তাআলা বছর আগে পবিত্র কোরআনে বলে দিয়েছে ।

My writings and videos are tailored just for your needs. What other topics would you like to write about or video on? Please comment your valuable feedback. You can join my social site.

0 comments:

Post a Comment

Contact Us

Phone :

+88 016 3670 21**

Address :

Jamalpur, Mymensingh,
Bangladesh

Email :

zahangiralamjp@gmail.com